শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৩৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
অভিনেতা শাহরিয়ার নাজিম জয়ের বাবা আর নেই করোনার টিকা নিয়ে অপপ্রচার শুরু করেছে বিএনপি : কাদের ভ্যাকসিন সংরক্ষণে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করতে হবে প্রাথমিক শিক্ষকদের গ্রেড নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আদেশ জারি দীর্ঘসময় তারুণ্য ধরে রাখতে মেনে চলবেন যেসব নিয়ম ব্যবহারকারীদের তথ্যগত গোপনীয়তা এবং ডেটা সুরক্ষাকে সম্মান করার আহ্বান ভারতের কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দীর্ঘস্থায়ী সৃষ্টি করে কিছু পানীয় আগ্রহী হলে বিএনপিকে যেন আগে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হয় : তথ্যমন্ত্রী ১০০০ মণের বেশি কাঁচাপাট এক মাসের বেশি মজুত করা যাবে না: বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী প্রাথমিকে উপবৃত্তি পেতে লাগবে জন্মনিবন্ধন সনদ

কুরআন শিক্ষার আসর (পর্ব ৭৬)

নিউজ ডেস্কঃ কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আমরা মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালার নৈকট্য অর্জন করতে পারি। কারণ কঠিন কিয়ামতের দিন এই কুরআন আমাদের জন্য সুপারিশকারী হবে।

জান্নাতেও কুরআনের ধারকদের বিশেষ সম্মাননা দেয়া হবে। আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন- রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, (কিয়ামতে) কুরআন অধ্যয়নকারীকে বলা হবে, কুরআন পাঠ করতে করতে ওপরে উঠতে থাকো। তুমি দুনিয়াতে যেভাবে ধীরে-সুস্থে পাঠ করতে সেভাবে পাঠ করো। কেননা তোমার তেলাওয়াতের শেষ আয়াতেই (জান্নাতে) তোমার বাসস্থান হবে। (আবু দাউদ, হাদিস : ১৪৬৪)।

বিশ্বনবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কুরআনের একটি হরফ পাঠ করে, তাকে একটি নেকি প্রদান করা হয়। প্রতিটি নেকি দশটি নেকির সমান। আমি বলি না যে, আলিফ-লাম-মীম একটি হরফ। বরং আলিফ একটি হরফ, লাম একটি হরফ, মীম একটি হরফ।’ (সুনান আত-তিরমিযী: ২৯১০)।

অতএব, আপনি কি নিজেকে বদলাতে চান? জীবনকে অর্থবহ করে তুলতে চান? আপনি কি মরেও অমর হয়ে থাকতে চান? সর্বোপরি দুনিয়া ও আখিরাতে আপনি যদি সফল হতে চান তাহলে আজ থেকেই যুক্ত হোন আমাদের পবিত্র কুরআন শিক্ষার এই আসরে।

পবিত্র কুরআন শিক্ষার আসরের ধারাবাহিক আলোচনায় আজ থাকছে সূরা আল বাকারার ১০৬-১১০ নম্বর পর্যন্ত আয়াত।

সূরা আল বাকারা (আরবি ভাষায়: سورة البقرة)। এটি পবিত্র কুরআনুল কারিমের দ্বিতীয় সূরা, এর আয়াত সংখ্যা ২৮৬টি এবং রূকুর সংখ্যা ৪০টি। আল বাকারা সূরাটি মদিনায় অবতীর্ণ হয়েছে।

بِسْمِ اللّهِ الرَّحْمـَنِ الرَّحِيمِ

অর্থ: শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।

(১০৬)

مَا نَنسَخْ مِنْ آيَةٍ أَوْ نُنسِهَا نَأْتِ بِخَيْرٍ مِّنْهَا أَوْ مِثْلِهَا أَلَمْ تَعْلَمْ أَنَّ اللّهَ عَلَىَ كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ

অর্থ: আমি কোনো আয়াত রহিত করলে অথবা বিস্মৃত করিয়ে দিলে তদপেক্ষা উত্তম অথবা তার সমপর্যায়ের আয়াত আনয়ন করি। তুমি কি জান না যে, আল্লাহ সব কিছুর ওপর শক্তিমান?

(১০৭)

أَلَمْ تَعْلَمْ أَنَّ اللّهَ لَهُ مُلْكُ السَّمَاوَاتِ وَالأَرْضِ وَمَا لَكُم مِّن دُونِ اللّهِ مِن وَلِيٍّ وَلاَ نَصِيرٍ

অর্থ: তুমি কি জান না যে, আল্লাহর জন্যই নভোমণ্ডল ও ভূমণ্ডলের আধিপত্য? আল্লাহ ব্যতীত তোমাদের কোনো বন্ধু ও সাহায্যকারী নেই।

(১০৮)

أَمْ تُرِيدُونَ أَن تَسْأَلُواْ رَسُولَكُمْ كَمَا سُئِلَ مُوسَى مِن قَبْلُ وَمَن يَتَبَدَّلِ الْكُفْرَ بِالإِيمَانِ فَقَدْ ضَلَّ سَوَاء السَّبِيلِ

অর্থ: ইতিপূর্বে মূসা (আ.) যেমন জিজ্ঞাসিত হয়েছিলেন, (মুসলমানরা), তোমরাও কি তোমাদের রাসূলকে তেমনি প্রশ্ন করতে চাও? যে কেউ ঈমানের পরিবর্তে কুফর গ্রহণ করে, সে সরল পথ থেকে বিচ্যুত হয়ে যায়।

(১০৯)

وَدَّ كَثِيرٌ مِّنْ أَهْلِ الْكِتَابِ لَوْ يَرُدُّونَكُم مِّن بَعْدِ إِيمَانِكُمْ كُفَّاراً حَسَدًا مِّنْ عِندِ أَنفُسِهِم مِّن بَعْدِ مَا تَبَيَّنَ لَهُمُ الْحَقُّ فَاعْفُواْ وَاصْفَحُواْ حَتَّى يَأْتِيَ اللّهُ بِأَمْرِهِ إِنَّ اللّهَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ

অর্থ: আহলে কিতাবদের অনেকেই প্রতিহিংসাবশতঃ চায় যে, মুসলমান হওয়ার পর তোমাদেরকে কোনো রকমে কাফের বানিয়ে দেয়। তাদের কাছে সত্য প্রকাশিত হওয়ার পর (তারা এটা চায়)। যাক তোমরা আল্লাহর নির্দেশ আসা পর্যন্ত তাদের ক্ষমা কর এবং উপেক্ষা কর। নিশ্চয় আল্লাহ সব কিছুর উপর ক্ষমতাবান।

(১১০)

وَأَقِيمُواْ الصَّلاَةَ وَآتُواْ الزَّكَاةَ وَمَا تُقَدِّمُواْ لأَنفُسِكُم مِّنْ خَيْرٍ تَجِدُوهُ عِندَ اللّهِ إِنَّ اللّهَ بِمَا تَعْمَلُونَ بَصِيرٌ

অর্থ: তোমরা নামাজ প্রতিষ্ঠা কর এবং জাকাত দাও। তোমরা নিজের জন্যে পূর্বে যে সৎকর্ম প্রেরণ করবে, তা আল্লাহর কাছে পাবে। তোমরা যা কিছু কর, নিশ্চয় আল্লাহ তা প্রত্যক্ষ করেন।

আজকে যা জানলাম ও শিখলাম-

আল্লাহ সব কিছুর ওপর শক্তিমান। আল্লাহর জন্যই নভোমণ্ডল ও ভূমণ্ডলের আধিপত্য এবং আল্লাহ ব্যতীত আমাদের কোনো বন্ধু ও সাহায্যকারী নেই।

দোয়া: হে আমাদের প্রতিপালক! তোমার সন্তুষ্টি অর্জন করতে, তোমাকে ভালভাবে জানতে, সঠিক পথের দিশা পেতে এবং দুনিয়া ও আখিরাতে সফল হতে নিয়মিত পবিত্র কুরআনের ০৫টি আয়াত অর্থসহ পড়ছি। তুমি আমাদের এ আমলটিকে কবুল করে নাও। এবং শয়তানের শয়তানি ও বদনজর থেকে হেফাজত রাখো। আমিন। ২০

সূত্র : ইকরা নিউজ


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Design & Developed BY N Host BD