বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ১২:৫৭ অপরাহ্ন

প্রোস্টেটের কোন সমস্যায় সতর্ক হবেন পুরুষরা?

নিউজ ডেস্কঃ প্রোস্টেট ক্যানসারে আক্রান্তের সংখ্যা বিশ্বব্যাপী বাড়ছে। গবেষণার তথ্য অনুসারে, প্রোস্টেট ক্যানসার পুরুষদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বাধিক ক্যানসার ও বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর ৫ম প্রধান কারণ।

ক্যানসার ছাড়াও, পুরুষ প্রস্টেটে প্রদাহ বা প্রস্টেটাইটিস ও প্রোস্টেট বৃদ্ধির মতো সমস্যাও হতে পারে। যা গুরুতর রোগ হিসেবে বিবেচিত। তাই প্রেস্টেটে কোনো সমস্যা আছে কি না, তা জানতে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা উচিত।

যদিও এটি পুরুষদের মধ্যে দেখা যাওয়া ক্যানসারের অন্যতম প্রধান রূপ, তবে প্রোস্টেট ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণগুলো প্রায়ই উপেক্ষা করা হয়। এই ক্যানসারের লক্ষণগুলো সাধারণ মনে হলেও তা কিন্তু অবহেলা করলেই তা মারাত্মক হতে পারে। যেমন-

.প্রস্রাব করতে সমস্যা
. হাড়ে ব্যথা
. হঠাৎ ওজন কমে যাওয়া
. ইরেক্টাইল ডিসফাংশন
. প্রস্রাবে রক্ত
. বীর্যে রক্ত
. প্রস্রাব বা বীর্যপাতের সময় জ্বালাপোড়া

প্রোস্টেট ক্যানসার হওয়ার কি নির্দিষ্ট বয়স আছে?

প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঘটনা ও মৃত্যুর হার বয়সের সঙ্গে দৃঢ়ভাবে সম্পর্কিত। ৬৫ বছরের বেশি বয়সী বয়স্ক পুরুষদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি এই ক্যানসার দেখা যায়। তবে অল্প বয়স্ক পুরুষদের মধ্যেও কঠিন এই রোগ দেখা দিতে পারে।

হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের এক প্রতিবেদনে উদ্ধৃত ইউএস প্রিভেন্টিভ সার্ভিসেস টাস্ক ফোর্সের অনুমান অনুসারে, ৫০-৫৯ বছর বয়সী পুরুষদের ক্ষেত্রে প্রোস্টেট ক্যানসারের ঝুঁকি ১০-৪২ শতাংশ। অন্যদিকে ৬০-৭৯ বছর বয়সীদের মধ্যে সামগ্রিক ঝুঁকি ১৭-৬৬ শতাংশ।

ক্যানসার বিষয়ে হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের আরেকটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একজন পুরুষ যার বাবা বা ভাই প্রোস্টেট ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের প্রোস্টেট ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি অন্যদের চেয়ে ২-৩ গুণ বেশি।

অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস, নিউ দিল্লি, ইন্ডিয়ার গবেষকদের দ্বারা ২০১৭ সালের এক সমীক্ষায় কমবয়সীদের মধ্যে প্রোস্টেট ক্যানসারের ঘটনার উপর আলোকপাত করা হয়। সেখানে উঠে আসে, একজন ২৮ বছর বয়সী পুরুষের উচ্চ পর্যায়ে প্রোস্টেট ক্যানসার নির্ণয় করা হয়েছিল।

যদিও তার তেমন কোনো লক্ষণ ছিল না, তবে মাঝে মধ্যে- তলপেটে ব্যথা, দুর্বল প্রস্রাবের বেগ, প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যাওয়া, পিঠের নিচের দিকে ব্যথা ও চাপের লক্ষণ দেখা দিত। গবেষণাটি কারেন্ট ইউরোলজি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

কারা বেশি ঝুঁকিতে?

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বিশেষভাবে সতর্ক করেছেন যাদের এই রোগের পারিবারিক ইতিহাস আছে তাদের সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য। এমনকি সর্বদা লক্ষণগুলো পর্যবেক্ষণ করতে।

যদিও বয়স্ক পুরুষরা অবশ্যই উচ্চ ঝুঁকির মধ্যে আছে, তবে অন্যান্য অনেক কারণ যেমন খাদ্যাভ্যাস ও অনিয়মিত জীবনযাত্রার কারণে অল্পবয়সীদের মধ্যেও ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়।

হার্ভার্ডের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যেসব পুরুষ প্রচুর লাল মাংস বা উচ্চ চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত খাবার খান তাদের প্রোস্টেট ক্যানসারের ঝুঁকি বেশি।

প্রোস্টেট ক্যানসার প্রতিরোধে করণীয়

আপনি যদি প্রোস্টেট ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকিতে থাকেন, তবে কিছু প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা অনুসরণ করা বুদ্ধিমানের কাজ। এক্ষেত্রে স্বাস্থ্যকর খাদ্য, যা মূলত কম চর্বিযুক্ত, উচ্চ মৌসুমি ফল ও সবজি প্রোস্টেট ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়।

বেশ কয়েকটি গবেষণায় দুগ্ধজাত পণ্য ও প্রোস্টেট ক্যানসারের মধ্যে একটি যোগসূত্র পাওয়া গেছে। যদিও এই বিষয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া আছে।

এক গবেষণায় বলা হয়েছে যে প্রতিদিন দুধ, পনির ও দই খাওয়া প্রোস্টেট ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়। এর পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর ওজন ও শারীরিক কার্যকলাপ বজায় রাখতে হবে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া


Leave a Reply

Your email address will not be published.

Design & Developed BY N Host BD