বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

বাজার থেকে কেনা খাদ্যদ্রব্য জীবাণুমুক্ত করবেন যেভাবে

নিউজ ডেস্কঃ করোনা ভাইরাসের বিস্তার ও সংক্রমণ রোধে এ সময় সচেতন থাকা জরুরি। ব্যক্তিগত সুরক্ষা বজায় রাখলেও, আপনি যে খাবার বাজার থেকে কিনে খাচ্ছেন, সেটি সুরক্ষিত তো! এ বিষয়ে কখনো ভেবেছেন কি?

এ সময় বাজার থেকে যেসব খাদ্যদ্রব্য কিনবেন, সেগুলো বাড়িতে এসে পরিষ্কার করতে হবে। কারণ খাবারের প্যাকেজিং থেকে শুরু করে ফল-শাক-সবজি সবকিছুতেই করোনার জীবাণু থাকতে পারে।

বেশ কয়েক ঘণ্টা পর্যন্ত খাবারের সারফেসে করোনাভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে। তাই বাজার করার পর বিভিন্ন পণ্য ও খাদ্যদ্রব্যের প্যাকেজিং এমনকি শাক-সবজিও পরিষ্কার করা জরুরি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, করোনাকালে বাজার থেকে কেনা খাবার দীর্ঘক্ষণ ধরে চলমান পানির নিচে রেখে দিতে হবে। তাহলে ভাইরাস ধ্বংস হয়ে যাবে। তবে শাক-সবজি বা ফল-মূলে জীবাণুনাশক ব্যবহার করা যাবে না। সরকারি বেশ কিছু নির্দেশনাও আছে এ বিষয়ে, জেনে নিন সেগুলো-

০১. রান্না করা খাবারের মাধ্যমে করোনায় সংক্রিমত হওয়ার কোনো প্রমাণ নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, খাবার রান্নার সময় এ ভাইরাস মরে যায়।

০২. বিশেষ করে কাঁচা শাক-সবজি ও ফল-মূলে করোনাভাইরাস থাকার সম্ভাবনা বেশি থাকে। কারণ বিভিন্ন ক্রেতারা ফল বা সবজি হাত দিয়ে সম্পর্শ করে থাকেন।

০৩. বাজার থেকে কেনা সবজি ও ফল খাওয়ার আগে ভালো করে লবণ ও গরম পানিতে ধুয়ে নিন।

০৪. কাঁচা বাজারের ক্ষেত্রে সবকিছু ট্যাপের নিচে পানি ছেড়ে রেখে দিন ২-৩ ঘণ্টা।

০৫. প্লাস্টিকের প্যাকেট, টিনের বা কাঁচের পাত্রে থাকা খাবার ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত স্পর্শ না করাই ভালো। সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহার করতে চাইলে জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করুন।

০৬. পরিষ্কারক হিসেবে ব্লিচ ব্যবহার না করাই ভালো। এতে ক্ষতিকারক উপাদান থাকে। যা চোখে গেলে ক্ষতি হতে পারে।

০৭. বাজারে যাওয়ার আগে এবং বাজার থেকে ফিরে সাবান ও পানি দিয়ে ২০ সেকেন্ড ধরে ভালো করে হাত ধুতে হবে। গোসল করতে পপারলে সবচেয়ে ভালো।

০৮. জারের ব্যাগ নির্দিষ্ট স্থানে রাখুন। প্রতিদিনই বাজারের ব্যাগটি ধুয়ে ফেলার অভ্যাস করুন। পলিথিনগুলো ডাস্টবিনে ফেলে দেবেন।

০৯. এ মুহূর্তে অর্থ লেনদেনের পর হাত ভালো করে জীবাণুনাশক দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Design & Developed BY N Host BD